মেইন ম্যেনু

প্রিজাইডিং কর্মকর্তার সামনে ছেঁড়া ব্যালট পেপার

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের একটি ভোকেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে। সিটি কলেজ কেন্দ্র এ ঘটনা ঘটে। পরে ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। প্রিজাইডিং অফিসার ফরিদ আহমেদ সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ‘হঠাৎ করে আওয়ামী লীগের কয়েকজন সমর্থক কেন্দ্রে ঢুকে পড়ে। এরপর তারা ব্যালট পেপার ছিঁড়ে ফেলে, কয়েকটি বই ছিনিয়ে নেয়। জালভোট দেওয়ার চেষ্টা করে।’

পরে ওই ছেঁড়া ব্যালট গণমাধ্যম কর্মীদের দেখান ফরিদ আহমেদ।

ঘটনার পর সিটি কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শনে এসে রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিবউদ্দিন মণ্ডল সবা বলেন, ‘সংঘর্ষের খবর শোনামাত্রই কেন্দ্র পরিদর্শনে এসেছি। প্রিজাইডিং অফিসারের সঙ্গে কথা বলে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়েছে। কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করার পরও সংঘর্ষের ঘটনা দুঃখজনক। আমরা ঘটনার তদন্ত করে ভোটের বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেব।

এর আগে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের দ্বারা ওই কেন্দ্র দখলের অভিযোগ করেন বিএনপি সমর্থিত মেয়রপ্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। সিটি কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ অভিযোগ করেন।

এ সময় তিনি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, ‘সিটি কলেজ কেন্দ্র ছাড়াও বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ দখল করে নিয়েছে। তারা কেন্দ্রগুলোতে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে। পুলিশের সামনে কেন্দ্রে ঢুকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দিয়েছে এবং মারধর করেছে।’

বের করে দেওয়ার সময় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে সাক্কুর সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে ৩ জন আহত হন। আহতরা হলেন, বিএনপি কাউন্সিলর প্রার্থী মাহবুব, ফরহাদ (৩০) নামে এক যুবক এবং বিএনপির এক এজেন্ট।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে (কুসিক) নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান এই সিটির মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে।






মন্তব্য চালু নেই