মেইন ম্যেনু

প্রথম ৪৮ ঘণ্টায় যা করলেন ট্রাম্প

দায়িত্ব নেবার পর প্রথম দিন অফিসে বসেই গণমাধ্যমকে এক হাত দেখে নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তার শপথ দেখতে আসা জনসমাগমের আকার নিয়ে মিথ্যাচার করছে গণমাধ্যম। সাংবাদিকদের পৃথিবীর সবচেয়ে অসৎ মানুষ বলেও উল্লেখ করেন ট্রাম্প।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং তার প্রেস সেক্রেটারি সিন স্পাইসারের গণমাধ্যম সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য নিয়ে বেশ সমালোচনা হচ্ছে।

ট্রাম্প ক্ষমতায় বসার সঙ্গে সঙ্গেই বেশ কিছু পরিবর্তন ঘটেছে। প্রথম ৪৮ ঘণ্টায় কি করেছিলেন ট্রাম্প? তার প্রশাসনের কার্যক্রমগুলো কি কি ছিল তাই এক নজরে দেখে নিন।

ফেডারেল সরকারের সব দায়িত্ব গ্রহণ করলেন ট্রাম্প। শপথ গ্রহণের পরেই এক সঙ্গে ৮০ জন রাষ্ট্রদূতকে বরখাস্ত করেন ট্রাম্প। সেই সঙ্গে ওবামা কেয়ার বাতিলের নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন তিনি।

এজেন্সিগুলোকে নতুন নিয়ম-নীতি স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এগুলো পর্যালোচনার সময় দিয়েছে নতুন প্রশাসন।

মেয়ের জামাইকে হোয়াইট হাউসের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত করতে বিচার বিভাগের সম্মতি আদায় করা হয়েছে।

সিআইএর কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ট্রাম্প। তিনি পারমাণবিক কোডের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। সিআইএর পরিচালক হিসেবে ট্রাম্পের পছন্দ কানসাসের রিপাবলিকান মাইক পমপিও।

এর আগে এক সাক্ষাতকারে মাইক বলেছিলেন, তিনি জিজ্ঞাসাবাদের কৌশলকে আরো বাড়াতে চান। বিশেষ করে তার গোয়েন্দা সদস্যরা চাইলে তিনি জিজ্ঞাসাবাদে ওয়াটারবোর্ডিং পদ্ধতিটি ফিরিয়ে আনতে চান।

ইরাক নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্য আরেকটি দ্বন্দ্ব তৈরি করেছে। ট্রাম্প সিআইএকে বলেছেন, ইরাক থেকে তেল নেয়ার ঘটনায় তিনি মোটেও অনুতপ্ত নন। তার মতে, তেল তাদের কাছেই রাখা উচিত। তিনি বলেন, ‘এ থেকে আমরা হয়তো আরো কোনো সুযোগ পেতে পারি।’

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনে আলাপ করেছেন ট্রাম্প। তাদের মধ্যে চলতি মাসের শেষ দিকে সাক্ষাৎ হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কানাডার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দু’দেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক নিয়ে কথা বলেছেন ট্রাম্প। মেক্সিকো এবং কানাডার শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাত করে নতুন করে আলোচনার ভিত্তিতে নাফটা নিয়ে কাজ শুরু করতে চান তিনি।

শুক্রবার পররাষ্ট্র নেতাদের সঙ্গে প্রথম বৈঠকের সময় হিসেবে ঘোষণা করেছেন ট্রাম্প। ওই বৈঠকে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে ওই বৈঠকে থাকবেন।

এ সপ্তাহেই আরো বেশ কিছু নির্বাহী আদেশ জারির প্রস্তুতি নিচ্ছেন ট্রাম্প। ২০০৯ সালে বারাক ওবামার শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠানের সঙ্গে ট্রাম্পের শপথ অনুষ্ঠানের জনসমাগমের তুলনা করে টুইটারে বিভিন্ন ছবি প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকতে প্রশাসনের তরফ থেকে ন্যাশনাল পার্ক সার্ভিসকে কড়া ভাষায় নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস সরিয়ে জেরুজালেমে স্থানান্তরের জন্য কথা-বার্তা শুরু করেছে হোয়াইট হাউস।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথম প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মুখোমুখি হয়েছেন ট্রাম্প। দেশটির জর্জিয়া এবং মিসিসিপিতে ভয়াবহ টর্নেডোর আঘাতে কমপক্ষে ১৮ জন প্রাণ হারিয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই