মেইন ম্যেনু

পদ্মায় জীবিত উদ্ধারের ঘটনাটি সাজানো, টাকার বিনিময়ে অভিনয়

পদ্মা নদীতে লঞ্চডুবির পাঁচ দিন পর জীবিত উদ্ধার হওয়ার ঘটনাটি সাজানো। উদ্ধার হওয়া ব্যক্তি টাকার বিনিময়ে অভিনয় করেছেন বলে জানিয়েছেন শ্রীনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুজিবর রহমান।

তিনি জানান, পাঁচ দিন আগে পদ্মায় ডুবে যাওয়া যাত্রীবাহী লঞ্চ পিনাক-৬ এর এক ব্যক্তিকে জীবিত উদ্ধার করা হয় শুক্রবার। কিন্তু ওই ব্যক্তি একজন মাদকাসক্ত। টাকার বিনিময়ে একজন ক্যামেরাম্যানের যোগসাজশে তিনি অভিনয় করেন। মাদকাসক্ত ওই ব্যক্তি নিজের নাম ‘সরোয়ার’ দাবি করলেও আসলে তার নাম রাসেল (২০)। তিনি মাদারীপুরের কুকরাইল এলাকার আলাউদ্দিন সর্দারের ছেলে।

শুক্রবার বিকেলে মাওয়া ঘাটে স্থাপিত পুলিশ কন্ট্রোল রুম থেকে মুজিবর রহমান মাইকে ঘোষণা দিয়ে বিভ্রান্তি দূর করেন।

শ্রীনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুজিবর রহমান আরও জানান, পাঁচ দিন পর জীবিত উদ্ধারের দাবি করার আমাদের সন্দেহ হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে রাসেল সব স্বীকার করে। বর্তমানে সে মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়িতে রয়েছে।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রাসেল জানান, এক ক্যামেরাম্যান তাকে বলেছিলেন পাঁচ দিন পর জীবিত উদ্ধার দাবি করলে ২০ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য পাওয়া যাবে। তাই টাকার লোভে তিনি এ নাটক সাজিয়েছেন।

পদ্মানদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চ পিনাক-৬ ডুবে যাওয়ার ঘটনার পাঁচ দিন পর এক ব্যক্তিকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়।






মন্তব্য চালু নেই