মেইন ম্যেনু

নূর হোসেন কলকাতায়!

নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন কলকাতায় অবস্থান করছেন। মেয়র নজরুলসহ সাতজনকে অপহরণের তিন দিন পর তিনি কলকাতায় পালিয়ে যান।

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসান রোববার একটি পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানান।

তিনি আরো জানান, নূর হোসেন পালানোর আরো একদিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে একে একে অপহৃত সাতজনের লাশ ভেসে ওঠে। নজরুলের শ্বশুর শহীদ চেয়ারম্যান র‌্যাবের বিরুদ্ধে প্রথম আঙ্গুল তোলেন এবং বলেন, র‌্যাবের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারাই ছয় কোটি টাকা ঘুষ নিয়ে এ হত্যাকা- ঘটিয়েছেন। এরপরই মূলত একের পর এক তদন্ত কমিটি গঠিত হয়।

কর্নেল জিয়াউল আহসান বলেন, নূর হোসেনকে গ্রেফতার করতে পারলেই খুনের সব রহস্য বেরিয়ে আসবে। তাকে ফিরিয়ে আনতে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে এর পাশাপাশি শহীদ চেয়ারম্যান জড়িত আছেন কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কারণ কিছু দিন আগে নজরুল নিজে তার শ্বশুর শহীদের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন।
কী কারণে এবং কীভাবে নূর হোসেন পালালো সে বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি।

নূর হোসেন পালানোর পর সীমান্তে রেড এলার্ট জারি করা হলো কেন? এ প্রশ্নের উত্তরেও তিনি কিছু বলতে রাজি হননি।
এদিকে সোমবার দুপুরে জিয়াউলের এ বক্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন নজরুলের শ্বশুর শহীদ চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, সাতজনকে অপহরণ এবং হত্যার  ঘটনায় র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসান নিজেও জড়িত রয়েছেন। তিনি জড়িত ছিলেন বিধায় নূর হোসেন দেশ ছেড়ে পালাতে পেরেছেন। আর নূর হোসেনকে র‌্যাবের লোকেরাই কলকাতায় পাঠিয়েছে বলে মন্তব্য করেন শহীদ চেয়ারম্যান।






মন্তব্য চালু নেই