মেইন ম্যেনু

নিজের মাথা মুড়িয়ে দুঃখ প্রকাশ সোনু নিগমের

অবশেষে নিজের মন্তব্যের জন্য দুঃখপ্রকাশ করলেন সোনু নিগম। বুধবার সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি বলেন, কোনও ধর্মের বিরোধী তিনি নন, তার মন্তব্যের জন্য যদি কোনও ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হয়ে থাকে তার জন্য দুঃখিত।

সেই সঙ্গে নিজের বক্তব্যের সঠিক ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন আজানের বিরুদ্ধে কোনও কথা তিনি বলেন নি। যা বলেছেন সবটাই মন্দির, মসজিদ, গুরদোয়ারায় লাউড স্পিকার বা মাইকের ব্যবহারের বিরুদ্ধে।

দিন কয়েক আগেই বিরক্ত হয়ে তিনি বলেছিলেন মাইকে আজান শুনিয়ে মানুষকে ধর্মচর্চায় বাধ্য করা হচ্ছে, যা একপ্রকার গুণ্ডাগিরির শামিল। তারপরেই সমালোচনার ঝড় ওঠে। সোনু নিগমকে মুসলিম ধর্ম বিরোধী বলে প্রচার শুরু করে দেন অনেকে। এই সমালোচনার হুজুকেই কলকাতার এক মৌলবি সোনুর বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করেন।

তার মাথা মুড়িয়ে, গলায় জুতোর মালা পরিয়ে দেশে ঘোরাতে পারলে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে বলো ঘোষণা করেন ওই মৌলবি। এই নিয়ে টুইটে সমালোচনাও করতে ছাড়েননি সোনু নিগম।

তারপরেই সাংবাদিক বৈঠক ডেকে সোনু বলেন, তিনি ধর্ম নিরপেক্ষ। সব ধর্মই তার কাছে সমান সম্মানের। এই মন্তব্য নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি আর বাড়াতে চান না তিনি। মৌলবী ফতোয়ার পাল্টা জবাব দিতে, সাংবাদিক বৈঠকের পরেই মাথা মুড়িয়ে সাংবাদিকদের সামনে আসেন তিনি। ‌

ফতোয়া ছিল মুসলিম নেতার। কেউ তার মাথা কামালে দশ লক্ষ টাকা ইনাম দেওয়া হবে। নজিরবিহীনভাবে নিজেই মাথা কামিয়ে সে ফতোয়ার জবাব দিলেন সোনু নিগম। আজান নিয়ে টুইট বিতর্কে আজ সাংবাদিক বৈঠক করে নিজের মতামত জানান তিনি।

জানিয়েছিলেন, কাউকে আঘাত করা তার উদ্দেশ্য ছিল না। তিনি কোনও ধর্মীয় ব্যাপারে মতামত দেননি। একটি সামাজিক বিষয়ে তার মত জানিয়েছিলেন মাত্র। তবু যখন ফতোয়া জারি হয়েছে, তখন মাথা কামানোরই সিদ্ধান্ত তার। ফতোয়ার এমন জবাব সম্ভবত এর আগে কেউ কোনওদিন দেননি।






মন্তব্য চালু নেই