মেইন ম্যেনু

না.গঞ্জে আবারো ব্যবসায়ী ‘অপহরণ’

চাঞ্চল্যকর অপহরণের পর ৭ খুনের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার বন্দর উপজেলার আমানউল্লাহ নামে এক কাপড় ব্যবসায়ী নিখোঁজ হয়েছেন।
সোমবার সকালে ব্যবসায়িক কাজে বের হয়ে তিনি আর ফিরে আসেননি। এরপর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন বলে দাবি করছে তার পরিবার।
আমানউল্লাহ বন্দরের দক্ষিণ মুছাপুরের মিনার বাড়ি এলাকার মৃত মিছির আলীর ছেলে।
আমানউল্লাহর বড় ভাই মোক্তার হোসেন জানান, আমাউল্লাহ নারায়ণগঞ্জ শহরের ২নং রেলগেট এলাকায় গেঞ্জির কাপড়ের ব্যবসা করেন। তিনি গাজীপুর থেকে ব্যবসার মালামাল কিনে থাকেন। সোমবার সকাল ৬টার দিকে মাল কেনার জন্য ৪ লাখ টাকা নিয়ে বন্দর থেকে গাজীপুরে রওনা হন। এরপর সকাল ৯টা থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। কোনোভাবেই যোগাযোগ করা যাচ্ছে না।
মোক্তার হোসেন আরো বলেন, ‘গাজীপুরের যে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে আমানউল্লাহ মালামাল কেনেন তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তাবে তারা জানিয়েছেন আমানউল্লাহ গাজীপুরে যায়নি।’
এদিকে বেলা ২টার দিকে আমানউল্লাহর বড় ভাই আমির হোসেনের মোবাইল ফোনে অপরিচিত নম্বর থেকে একটি কল আসে। ফোনে অপরিচিত এক ব্যক্তি আমানউল্লাহকে টঙ্গীতে খোঁজার পরামর্শ দেন। এরপর টঙ্গী, গাজীপুর এবং এর আশপাশের এলাকায় তাকে খোঁজাখুঁজি করেও কোনো হদিস পাওয়া যায়নি।
তার পরিবারের দাবি, আমানউল্লাহকে অপহরণ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত বুধ ও বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জে অপহৃত কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনের লাশ উদ্ধার হয়।
ওই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই একই এলাকা থেকে সাইফুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ী নিখোঁজ হন। পরে শুক্রবার মাঝরাতে সাভারের নবীনগর থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই