মেইন ম্যেনু

‘নগ্ন’ ছবি পোস্ট করে জেলে এই মহিলা, ভিতরের গল্প পড়লে বদলে যাবে নগ্নতার অর্থ

‘নগ্ন’ হওয়ার অপরাধে জেলে যেতে হল ইরানের এক মহিলা ভারোত্তোলককে। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে ইরানের সেই মহিলা ভারোত্তোলকটি নিজের ‘নগ্ন’ সেলফি পোস্ট করেছিলেন। এটাই ছিল তাঁর অপরাধ। আর তার জন্য তাঁকে শ্রীঘরে যেতে হয়। এ হেন ভারোত্তোলকটি কে? জানা গিয়েছে, তাঁর নাম শিরিন নোবাহারি। আন্তর্জাতিক দেহসৌষ্ঠব প্রতিযোগিতায় অতীতেও অংশ নিয়েছিলেন নোবাহারি। ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে নোবাহারি তাঁর পেশিবহুল শরীরের ছবি পোস্ট করেছেন। রয়েছে তাঁর একাধিক ভিডিও।

সুগঠিত হাত ও পায়ের অংশ উন্মুক্ত রেখে ছবি পোস্ট করাই ছিল ইরানি এই ভারোত্তোলকের অপরাধ। এত পর্যন্ত পড়ে অনেকেই মনে করতে পারেন কীভাবে ‘নগ্ন’ হলেন নোবাহারি? ছবিতে তো দেখা যাচ্ছে, তিনি জামাকাপড় পরেই রয়েছেন। খবরের ভিতরকার খবর বলছে অন্য কথা। ইরানে নগ্নতার অর্থ অন্য। মহিলাদের শরীরের অংশ উন্মুক্ত রাখাই সেই দেশে নগ্নতা।
মহিলারা নিজেদের হাত, পা অথবা শরীরের কোনও অংশ যদি খোলা রাখেন, তাহলেই তিনি ‘নগ্ন’ বলে প্রতিপন্ন হবেন। নোবাহারি তাঁর হাত ও পায়ের অংশ খোলা রেখে ছবি তুলেছিলেন। তাই তিনি নগ্ন। দেশের নিয়ম মেনে ইরানের মহিলা ভারোত্তোলকরা আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। নাহলেই তাঁকে অপরাধী বলে সাব্যস্ত করা হবে। এমনকী পুরুষরা যে খেলায় অংশ নেন, সেই খেলাও দেখতে পারবেন না ইরানের মহিলারা। সেই দেশের মহিলারা জাতীয় ফুটবল দলের খেলাও দেখেন না।






মন্তব্য চালু নেই