মেইন ম্যেনু

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া : বন্দরে ঠায় দাঁড়িয়ে নৌ যান

সকাল থেকেই থেমে থেমে ঝুম বৃষ্টি। সেই সঙ্গে দমকা বাতাস। বেড়ে গেছে নৌপথে চলাচলের ঝুঁকি। এ কারণে ঢাকাসহ সারাদেশে নৌবন্দর থেকে লঞ্চ, স্টিমারসহ সব ধরনের নৌ চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লিউটিএ। আবহাওয়া ভাল না হওয়া পর্যন্ত এই সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

সোমবার সংস্থাটির চেয়ারম্যান কমোডম মোজাম্মেল হক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘এখন আবহাওয়া অধিদপ্ত দুই নম্বর সতর্ক সংকেট দেখাতে বলেছে। এই অবস্থায় সকাল থেকেই আমরা নৌ চলাচল বন্ধ রেখেছি। আমাদের এই সিদ্ধান্ত বন্দরগুলাতে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।’

এই নিষেধাজ্ঞা কতক্ষণের জন্য দেয়া হয়েছে-জানতে চাইলে বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন বন্দরে খোঁজ নিচ্ছি। আবহাওয়া পরিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত এই সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে।

নৌযান চলাচল বন্ধ থাকায় বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীরা রাজধানীর সঙ্গে যোগাযোগে ভোগান্তিতে পড়েছে। বিভিন্ন বন্দরে আটকা পড়েছে হাজার হাজার যাত্রী। নিষেধাজ্ঞা আসার আগে বন্দর ছেড়ে যাওয়া নৌযানগুলোকেও নিরাপদে তীরে ভেড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বছরের এই সময়টায় নৌ চলাচল থাকে ঝুঁকিপূর্ণ। ঘূর্ণিঝড় এই সময়টায় এক সাধারণ চিত্র। নদীতে ঝড়ের কবলে পড়ে নৌযান ডুবে প্রাণহানির ঘটনা ঘটে প্রায় বছরই। এ কারণে বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠে নৌ চলাচলে প্রায়ই দেয়া হয় নিষেধাজ্ঞা।

গত কয়েক দিন ধরেই বিরূপ আবহাওয়া বিরাজ করছে সারা দেশেই। টানা বৃষ্টির পাশাপাশি ঝড়ো হাওয়া বইছে, সেই সঙ্গে বজ্রপাত এক সাধারণ চিত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী আজ সোমবার বরিশাল, চট্টগ্রাম , ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগের অনেক জয়গায় এবং খুলনা এবয় ঢাকা বিভগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর ও রাজশাহ বিভাগের দুই এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে বরিশাল, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।






মন্তব্য চালু নেই