মেইন ম্যেনু

তরুণ প্রজন্মকে আইটিতে দক্ষ করতে সরকারের যত উদ্যোগ

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সরকার নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ে দক্ষ করে তোলার লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার।ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে নানামুখী উদ্যোগ, প্রকল্প, কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে কাজ করে চলেছে সরকার।

২০১৫-১৬ অর্থ বছরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি(এডিপি)বাস্তবায়নের হার শত ভাগের উর্ধ্বে অর্থাৎ ১২১ শতাংশ। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে দেশের তরুণ প্রজন্মকে দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য মানবসম্পদ উন্নয়নের নানা প্রকল্প ও কর্মপরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-

শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব ও ভাষা প্রশিক্ষণ
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এ পর্যন্ত সারা দেশে প্রায় ৫ হাজারের বেশি কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করেছে, যার মধ্যে ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব’ অন্যতম। দেশের ২০০১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ল্যাবের মধ্যে ৬৪ জেলায় একটি করে ল্যাঙ্গুয়েজ ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এসব ল্যাবে ৯টি বিদেশি ভাষা শেখানো হবে।এছাড়া আরও ৮শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ল্যাব ও ১০০টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ক্লাসরুম স্থাপনের সমস্ত প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হয়েছে।

ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড অনট্রাপ্রেনিউরশিপ একাডেমি
তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক উদ্ভাবন, সম্ভাবনাময় তরুণ উদ্যোক্তাদের সিডি ফান্ড ও ভেঞ্চর ক্যাপিটাল প্রাপ্তিতে সহায়তা প্রদান এবং গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে নতুন নতুন পণ্য ও সেবা সৃষ্টির জন্য ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড অনট্রাপ্রেনিউরশিপ একাডেমি(আইডিয়া)প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে। গত ৫ সেপ্টেম্বর একনেক প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়।প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ২২৯ দশমিক ৭৪ কোটি টাকা।স্টার্টআপ,প্রতিষ্ঠিত উদ্যোক্তা,গবেষক,সরকারি কর্মকর্তা,ব্যবসায়িক নেতা,পরামর্শক,ছাত্রসহ অন্যদের একই ছাদের নিচে আনার লক্ষ্যে আইডিয়া প্রকল্পটি কাজ করবে।

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ আইটি খাতে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির লক্ষ্যে দেশের ৭টি স্থানে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।স্থানগুলো হচ্ছে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ, চট্রগ্রাম বন্দর,নাটোরের সিংড়া,কুমিল্লা সদর,নেত্রকোনা সদর,বরিশাল সদর ও মাগুরা সদর। নাটোরের শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারে একসঙ্গে ৪৮০ জন ট্রেনিং করতে পারবে।এছাড়া ৫০টি স্টার্ট আপ, ২৯টি প্লাগ অ্যান্ড প্লে গড়ে উঠবে।

চুয়েট আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর
আইটি খাতে দক্ষ মানবসম্পদ ও উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে চট্রগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে আইটি বিজনেস অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রকল্পের পিইসি সম্পন্নের পাশাপাশি অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে জনবল অনুমোদিতও হয়েছে।

দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলায় প্রশিক্ষণ
ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে একুশ শতকের উপযোগী দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার বিকল্প নেই। সরকারের লক্ষ্য ২০২১ সালের মধ্যে দেশের আইটি পেশাজীবীর সংখ্যা ২০ লাখে উন্নীত করা। এ লক্ষ্যের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগে আইটি প্রশিক্ষণ, বিশেষায়িত ল্যাব এবং আইটি প্রশিক্ষণে উদ্বুদ্ধকরণের জন্য সচেতনমূলক ইভেন্টের আয়োজনও থাকবে।

ইন্টারঅ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া ডিজিটাল টেক্সট বুক
পাঠ্য বিষয়বস্তুকে আনন্দদায়ক করে উপস্থাপনের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা পর্যায়ের ইন্টারঅ্যাকটিভ মাল্টিমিডিয়া ডিজিটাল কনটেন্ট প্রস্তুত করা হয়েছে।প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ২১টি টেক্সটবুক বা ই-বুক রুপান্তর করে বিভিন্ন স্কুলে বিতরণ করা হয়েছে। গতবছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি ডিজিটাল টেক্সটবুক উদ্বোধনের পর থেকে এ পর্যন্ত ডাউনলোড হয়েছে ৫ লাখ ৫০ হাজার।

আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প
আইটিতে ক্যারিয়ার গড়ে তোলার জন্য উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে এলআইসিটি প্রকল্প উদ্যোগের দেশের ৬৪ জেলায় বিশ্ববিদ্যালয়/কলেজে আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প আয়োজন করা হয়। এ পর্যন্ত ৩৬টি জেলায় আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়।এসব ক্যাম্প আয়োজনের মাধ্যমে ৭০ হাজার ছাত্রছাত্রীকে অনলাইনে নিবন্ধনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে।এ বছরের মার্চের মাধ্যে বাকি জেলাগুলোতে এ ক্যাম্পের আয়োজন করা হবে।

মোবাইল গেম ও অ্যাপ্লিকেশন তৈরির প্রশিক্ষণ
বিশ্বব্যাপী মোবাইল গেমের বিশাল বাজার রয়েছে।তথ্যপ্রযুক্তিতে উন্নত বিভিন্ন দেশ মোবাইল বাজার থেকে প্রচুর পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে।বাংলাদেশ এ বাজারে প্রবেশ করতে চায়। এজন্য মোবাইল গেম ও অ্যাপ্লিকেশনের দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্প শীর্ষক একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ।

বিশেষায়িত ল্যাব
তথ্য প্রযুক্তিতে উচ্চতর প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ জনবল তৈরির লক্ষ্যে বিগ ডাটা অ্যানালাইটিকস বিষয়ে বিসিসিতে ইতোমধ্যে একটি টাইটানিয়াম ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।বিসিসির এলআইসিটি ও ইনফোরকার-২ প্রকল্পের আওতায় যথাক্রমে একটি বিশেষায়িত ল্যাব এবং স্পেশাল সাউন্ড ইফেক্ট ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে।এ ল্যাবগুলোতে নিয়মিত প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলছে।এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের আইটিতে দক্ষ করে তোলার জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সফটওয়ার টেস্টিং ল্যাব,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি অ্যানিমেশন ল্যাব এবং বাংলাদেশ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি রোবটিক ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ডেটা সফটের সঙ্গে একটি ইন্টারনেট অব থিংক(আইওটি) ল্যাবও প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

ওয়ান স্টুডেন্ট ওয়ান ল্যাপটপ
এক্সিম ব্যাংকের সহযোগিতায় ওয়ান স্টুডেন্ট ওয়ান ল্যাপটপ প্রোগ্রামের আওতায় মেধাবী ও অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত সহস্রাধিক ছাত্রছাত্রীর মধ্যে ল্যাপটপ বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া সরকারের নেতৃত্বে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের এগিয়ে যাওয়ার তিন বছর পূর্তি উপলক্ষে সম্প্রতি জুনাইদ আহমেদ পলক তার মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম এবং আগামী দিনের কর্মপরিকল্পনা উপস্থাপন করেছেন।

সরকারের বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী নূরুন নাহিদ মো. হাবিব বলেন, তরুণ প্রজন্ম দেশ ও জাতির ভবিষ্যৎ। `ডিজিটাল বাংলাদেশ` গড়ে তোলার জন্য দেশের শিক্ষিত তরুণ তরুণীকে বিশ্বমানের প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে এগিয়ে নিতে হবে। এতে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।সেসব দিক বিবেচনা করে তরুণ প্রজন্মকে তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ করতে সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে তা অবশ্যই একটা কার্যকরী পদক্ষেপ।

বর্তমানে আইটি বিষয়ক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে এমন আরেক শিক্ষার্থী আবু সিনা সালাহ উদ্দীন বলেন, সরকার ফ্রিল্যান্সারদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উদ্যোক্তা ও বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং পেশাজীবী হিসেবে গড়ে তোলার কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে একদিকে যেমন তথ্য ও প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাবে দেশ তেমনি অর্থনৈতিক দিক দিয়েও হবে স্বাবলম্বী। বর্তমান যুগ তথ্য প্রযুক্তির যুগ।যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হলে আমাদের যুব সমাজকে তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। সেই দিক থেকে সরকারের এমন পদক্ষেপকে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি জানাই কৃতজ্ঞতাও।






মন্তব্য চালু নেই