মেইন ম্যেনু

র‌্যাবের ৩কর্মকর্তাকে গ্রেফতারের নির্দেশ হাইকোর্টের

ড. কামাল কাজটি না করলেও পারতেন : স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

নারায়ণগঞ্জে সাত অপহরণ ও খুনের ঘটনায় বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেন হাইকোর্টে রিট করায় উষ্মা প্রকাশ করেছেন স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেছেন, ‘এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে চাকরিচ্যুত র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মাহমুদসহ ৩ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে উচ্চ আদালত থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তা সংবিধান বিশেষজ্ঞ ও সিনিয়র আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতিই। এ কাজটি ড. কামাল না করলেও পারতেন।’
রোববার দুপুরে সচিবালয়ে নিজ কক্ষে এ কথা বলেন তিনি।

ড. কামালের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘উনি নিশ্চয় জানেন, এ বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত চলছে। একটি আদালতের নির্দেশে এবং অন্যটি আমাদের নিজস্ব তদন্ত কমিটি। ঠিক এ সময়ে তিনি এ রিটটি দায়ের করলেন। বিষয়টা কতখানি যৌক্তিক হয়েছে তা আমি জানি না।’

তিনি বলেন, ‘ড. কামাল যেহেতু বিজ্ঞ ব্যক্তিত্ব, সেহেতু উনার কাছে যে তথ্য রয়েছে সেগুলো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দিতে পারতেন। অথবা কোর্টের মাধ্যমে যে তদন্ত কমিটি কাজ করছে তাদেরও দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি তথ্য না দিয়ে যে কাজটি করেছেন তা না করলেও পারতেন।’

কোর্টের আদেশের প্রতিক্রিয়ায় আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘হাইকোর্ট যে আদেশ দিয়েছেন তা এখনো আমাদের কাছে আসেনি। আদেশের কপি হাতে পেলেই আমরা ব্যবস্থা নেব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা বদ্ধপরিকর। যে দোষী হবে তাকে আমরা আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবো। তাকে গ্রেপ্তারে যা যা করা দরকার তাও করবো। সে যেই হোক।’

নূর হোসেন সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সে যেখানে থাকুক, যে দেশে থাকুক আমরা তাকে ধরবো।’
উল্লেখ্য, ড. কামাল হোসেনের রিটের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার সকালে চাকরিচ্যুত তিন র‌্যাব কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এমনকি প্রচলিত আইনে র‌্যাব কর্মকর্তাদের গ্রেপ্তার করতে না পারলেও ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করতে বলা হয়েছে। গ্রেপ্তার করার পর তা আদালদকে জানাতেও বলা হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের ব্যবস্থা করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি র‌্যাব কর্মকর্তাদের গ্রেপ্তার ও জিজ্ঞাসাবাদ সংক্রান্ত আদেশ বাস্তবায়নের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যে বিবাদীকে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই