মেইন ম্যেনু

‘ট্রাম্প আমাকে ভিনগ্রহের প্রাণী বানিয়েছেন’

এবার যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মুখ খুলল সোমালিয়ায় জন্ম নেওয়া ব্রিটিশ দৌড়বিদ মোহাম্মদ ফারাহ। যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এক সিদ্ধান্তে যুক্তরাষ্ট্রে নিজের পরিবারের কাছে যেতে পারছিলেন না ফারাহ।

নির্বাহী আদেশে ট্রাম্প সিরিয়া, ইরাক, ইরান, লিবিয়া, ইয়েমেন, সোমালিয়া ও সুদানের নাগরিক ও শরণার্থীদের ৯০ দিন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। এই নিষেধাজ্ঞার খড়গে পড়েন ফারাহও। তাই তিনি বলেছেন, ট্রাম্প ওই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তাকে ‘ভিনগ্রহের প্রাণী’ বানিয়ে দিয়েছেন!

‘নাইটহুড’ উপাধি পাওয়া ফারাহ রোববার তার ফেসবুক পেজে লেখেন, ‘এ বছরের ১ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের রাণী আমাকে “নাইটহুড” উপাধি দিয়েছিলেন। আর ২৭ জানুয়ারি ট্রাম্প আমাকে “ভিনগ্রহের প্রাণী” বানিয়ে দিয়েছেন! আমি একজন ব্রিটিশ নাগরিক, গত ৬ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছি। নিয়মিত কর দিচ্ছি, কোনো অপরাধ করিনি। আমাদের চার সন্তান আমাকে বাড়িতে ডাকছে। কিন্তু আমি এবং আমার মতো অনেকে সেখানে যেতে পারছি না।’

এখন অবশ্য ফারাহর যুক্তরাষ্ট্রে যেতে কোনো বাধা নেই। যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে জারি করা নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে সাময়িক স্থগিতাদেশ জারি করেছেন দেশটির আদালত। পরে ফারাহ আরেকটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে তাই স্বস্তিও প্রকাশ করেন। তবে ট্রাম্পের এমন নীতি মোটেই ভালো দিক নয় বলে মনে করে ৩৩ বছর বয়সি এই দৌড়বিদ লিখেছেন, ‘একজন প্রেসিডেন্টের এরকম হঠকারী সিদ্ধান্ত কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না। মাত্র ৮ বছর বয়সে আমি সোমালিয়া ছেড়ে ইংল্যান্ড গিয়েছিলাম। সেখানে কখনোই এরকম ব্যবহার পাইনি।’

২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে ৫ হাজার ও ১০ হাজার মিটার দৌড়ে সোনা জিতেছিলেন। ২০১৬ রিও অলিম্পিকেও এই দুই ইভেন্টে সোনা জিতে মোহাম্মদ ফারাহ গড়েন ‘ডাবল ডাবল’ কীর্তি।






মন্তব্য চালু নেই