মেইন ম্যেনু

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে লাখ লাখ মানুষের বিক্ষোভ অব্যাহত

যুক্তরাষ্ট্র ও সারা বিশ্বের বিভিন্ন শহরে লাখ লাখ মানুষ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন। বিশ্বজুড়ে ছয় শতাধিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিক্ষোভকারীরা মূলত নারী অধিকার আদায়ে এ বিক্ষোভ করছেন। তাঁদের আশঙ্কা, ট্রাম্পের নতুন প্রশাসনে নারী অধিকার হুমকির মুখে পড়েছে।

এরই মধ্যে ট্রাম্প তাঁর দায়িত্বের প্রথম দিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিআইএ) কার্যালয়ে কাটিয়েছেন। তিনি তাঁর অভিষেক অনুষ্ঠানে জনসমাগমের উপস্থিতির সংখ্যা নিয়ে সংবাদমাধ্যমের অসততাকে দায়ী করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বড় সমাবেশ হয় ওয়াশিংটনে, যেখানে পাঁচ লক্ষাধিক মানুষ অংশ নেয়। শুক্রবার ট্রাম্পের অভিষেক অনুষ্ঠানে উপস্থিতির সংখ্যার চেয়ে এটা বেশি।

ওয়াশিংটনে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে রয়েছেন অভিনেত্রী স্কারলেট জোহানসন, আমেরিকা ফেরেরা, অ্যাশলি জাড, গ্লোরিয়া স্টাইনেম ও তথ্যচিত্র নির্মাতা মাইকেল মুর।

হোয়াইট হাউস অভিমুখে মিছিল নিয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয়নি। কারণ, সেই পথে বিক্ষোভকারীরা অবস্থান নিয়েছে।

ওয়াশিংটন ডিসির পুলিশপ্রধান পিটার নিউশ্যাম বলেন, ‘জনতার স্রোত এমন জায়গায় গেছে যে মিছিল সম্ভব নয়।’

সমাবেশে বক্তব্যে মাইকেল মুর বলেন, “শিরোনাম হলো ‘ট্রাম্প ক্ষমতা নিলেন’। আমার সেটা মনে হয় না। এই যে দেখা যাচ্ছে ক্ষমতা। আমেরিকার সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ এখানেই। আমরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ।”

সমাবেশে কণ্ঠশিল্পী ম্যাডোনাও ছিলেন। তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, আমি ক্ষুব্ধ। হ্যাঁ, হোয়াইট হাউস উড়িয়ে দেওয়ার মতো ভয়ংকর চিন্তা করেছি আমি।’

এ ছাড়া শিকাগোর বিক্ষোভে দেড় লাখের বেশি মানুষ জড়ো হয়। নিউইয়র্ক, সিয়াটল, বোস্টন, মিয়ামিসহ যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৩০০টি জায়গায় বিক্ষোভ হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে প্যারিস, লন্ডন, বার্লিন, সিডনিতে লাখ লাখ মানুষ ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে।

গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন রিপাবলিকান দলের ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন অনেকেই। এ ছাড়া একজন এ অভিযোগে মামলাও করেছেন।






মন্তব্য চালু নেই