মেইন ম্যেনু

জঙ্গি ভাড়াটিয়া চিহ্নিত করার বিশটি পদ্ধতি

জঙ্গি ভাড়াটিয়াকে চিহ্নিত করার ২০টি উপায় জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। মেট্রোপলিটন পুলিশ জানায়, জঙ্গিদের সুনির্দিষ্ট পেশা থাকে না। তাদের বাসায় বেশি আসবাবপত্র থাকে না। তারা বেশিরভাগ সময়ই ঘরের ভেতর থাকে। তারা ছোট হাড়ি পাতিলে রান্না করে।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর তিতুমীর কলেজ প্রাঙ্গনে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গুলশান বিভাগের আয়োজনে মাদক ও জঙ্গি বিরোধী সমাবেশে ‘জঙ্গি ভাড়াটিয়া চিহ্নিত করার উপায়’ নামে একটি লিফলেট সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগ ভাড়াটিয়াদের জন্য নির্দেশনাসম্বলিত এই লিফলেট তৈরি করে।

জঙ্গি ভাড়াটিয়া চিহ্নিত করার উপায়:

১. বয়স ১৫-২০ বছর হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

২. সুনির্দিষ্ট পেশা থাকে না, যে পেশা উল্লেখ করে তা সাধারণত সঠিক থাকে না, এজন্য বাসা ভাড়া দেয়ার পূর্বে অবশ্যই পেশা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে।

৩. ঘন ঘন বাসা বদলায় (২-৬), এজন্য পূর্বের বাসায় কতদিন ছিল তা অনুসন্ধানপূর্বক নিশ্চিত হতে হবে।

৪. জাতীয় পরিচয় পত্রের ছবি ও বাস্তবের ছবির মধ্যে মিল নাও থাকতে পারে। অনেক সময় জাল/নকল জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে বাসা ভাড়া নেয়।এজন্য বাসা ভাড়া দেয়ার সময় অবশ্যই জাতীয় পরিচয় পত্রের ছবি ও যিনি ভাড়া নিচ্ছেন তার ছবি মিলিয়ে দেখতে হবে। সন্দেহ হলে থানার সাহায্য নিতে হবে।

৫. ভাড়াটিয়া মোবাইল ফোন নম্বর দিতে অনিচ্ছুক থাকে, এজন্য বাসা ভাড়া দেয়ার সময় বাড়ির মালিক অবশ্যই নিজের ফোন নম্বর থেকে ভাড়াটিয়ার ফোনে ফোন করে মোবাইল নম্বর সম্পর্কে নিশ্চিত হবেন।

৬. বাসার খাট, আলমারী, সোফা, ডাইনিং টেবিল, এ ধরনের বড় আসবাবপত্র থাকার সম্ভাবনা কম। সাধারণত তোষক, জাজিম, চাদর ব্যবহার করে।

৭. ছোট হাড়ি পাতিলে রান্না করে, বড় কোনো হাড়ি, পাতিল, কড়াই যেগুলো একটি পরিবারে থাকার কথা সেগুলো থাকে না।

৮. বড় টিভি কিংবা ডেস্কটপ কম্পিউটার থাকে না, ল্যাপটপ, ট্যাব থাকতে পারে।

৯. বাসার একতলা কিংবা উপরের দিকের ফ্লোরে অবস্থান করার প্রবণতা বেশি।

১০. বাসার জানালা দরজা অধিকাংশ সময় বন্ধ থাকে কিংবা উপরের কালো পর্দা দিয়ে ঢাকা থাকে, বাইরে থেকে ভিতরে দেখা যায় না।

১১. সাধারণত মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়ে না।

১২. আশেপাশের ব্যক্তিদের সঙ্গে ভাড়াটিয়ার সখ্যতা থাকে না, কাউকে বাসায় আমন্ত্রণ করে না কিংবা ভিতরে প্রবেশ করতে দেয় না।

১৩. বাসার মধ্যে মহিলা/নারী থাকলে তারা বাইরে আসে কম, আশেপাশের বাসার মহিলার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক রাখার প্রবণতা পরিলক্ষিত হয় না।

১৪. বাসায় গৃহকর্মী রাখতে দেখা যায় না, বাসার অভ্যন্তরে ভিজা কাপড় শুকানোর প্রবণতা রয়েছে।

১৫. সন্তানেরা স্কুলে যায় না, সাধারণত বাসায় অবস্থান করে, আশেপাশের শিশু কিশোরদের সঙ্গেও খুব একটা মিশে না।

১৬. কেউ বাসার মধ্যে প্রবেশ করতে চাইলে দরজায় দাঁড়িয়ে তার সঙ্গে কথা বলে, কাউকে ভিতরে আমন্ত্রণ জানায় না।

১৭. গোপনে ঐ বাসায় সন্দেহজনক কিশোর, যুবক কিংবা মধ্যবয়সী পুরুষেরা যাতায়াত করে।

১৮. পুরুষদের মধ্যে কাঁধে ঝোলান ব্যাগ ব্যবহারের প্রবণতা দেখা যায়।

১৯. বাসা যিনি ভাড়া নিয়েছেন তার পরিবর্তে অন্য কেউ অবস্থান করতে পারে।

২০. বাইরে যাওয়ার সময় নির্ধারিত নয় (প্রতিদিন নিদিষ্ট সময়ে চাকরি কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার মতো নয়)।






মন্তব্য চালু নেই