মেইন ম্যেনু

জঙ্গি ঢোকানোর জন্য সুড়ঙ্গ কাটলেই এবারে টের পাবে ভারত, জেনে নিন কীভাবে

২০০১ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে, ভারত লাগোয়া পাকিস্তান সীমান্তে আটটি সুড়ঙ্গের হদিশ পাওয়া যায়। গড়ে, প্রতি দু’বছর অন্তর এই সুড়ঙ্গগুলির খোঁজ মেলে। এবং ধরে নেওয়া হচ্ছে যে, এগুলির মধ্যে কেবলমাত্র একটি সুড়ঙ্গই তৈরি করা হয় মাদক পাচারের জন্য। অর্থাৎ, বাকিগুলো তৈরি হয় ভারতে অনুপ্রবেশ করার জন্য। হতে পারে, জঙ্গি হামলার জন্যও। কারণ স্বরূপ অবশ্যই দর্শানো হচ্ছে সাম্প্রতিকতম দু’টি হামলার কথা— ২০১৬-র জানুয়ারি মাসের পাঠানকোট হামলা ও গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে উরি হামলা।

উরি হামলার পরে, নভেম্বরের শেষ দিকে সর্বশেষ সুড়ঙ্গটির খোঁজ পায় বিএসএফ। এরপরেই নড়েচড়ে বসে কেন্দ্র। ‘ন্যাশনাল সেন্টার ফর এক্সেলেন্স ইন টেকনলজি ফর ইন্টারনাল সিকিউরিটি’-র সাহায্যে এক বিশেষ পদ্ধতি কার্যকর করার কথা ভেবেছে কেন্দ্র। টানেল ডিটেকশন বা সুড়ঙ্গ খুঁজে বের করা ও গানশট ডিটেকশন বা সুড়ঙ্গ খোঁড়া রোধ করা— এই দুই পদ্ধতিতে শত্রুপক্ষকে নিরস্ত করার পরিকল্পনা করেছে কেন্দ্র।
প্রসঙ্গত, মুম্বইয়ের এই প্রযুক্তি সংস্থাটি আইআইটি বি-র একটি অংশ। সংস্থাটি তার প্রযুক্তি পরীক্ষা করার জন্য প্রস্তুত বলে জানা গেছে। এবার অপেক্ষা শুধু শত্রু নিধনের।






মন্তব্য চালু নেই