মেইন ম্যেনু

দিনাজপুরের বিরামপুরে

চা-পান-সিগারেটের দোকানে ফেন্সিডিল,গাঁজা, হেরোইন!

দিনাজপুরের বিরামপুরে প্রায় এক’শ পান সিগারেটের দোকানে গাঁজা এবং চল্লিশ থেকে পঞ্চাশটি হোটেল-রোস্তোরায় ফেন্সিডিল বিক্রি হচ্ছে। নাম্বার বিহীন মটরসাইকেলের অবাধ যাতায়াতের ফলে তরুণরা খুব সহজেই সীমান্তবর্তী এলাকায় গিয়ে মাদক সেবন করছে।
শনিবার দুপুরে বিরামপুর থানার আয়োজনে ওপেন হাউজ-ডে অনুষ্ঠানে বক্তরা এসব কথা বলেন। বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফুলবাড়ি সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি ) সুশান্ত সরকার।
সাংবাদিক মাহমুদুল হক মানিক বলেন, বিভিন্ন অভিযানের কারনে শহরের মাদক ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কৌশলে অসাধু হোটেল রেস্তোরার মালিকদের মাধ্যমে ফেন্সিডিল বিক্রি করছে। অসাধু পান সিগারেটের দোকানগুলোতে গাঁজা ও হেরোইন বিক্রি করছে। বিরামপুরে দিন দিন ইয়াবার প্রচলও বেড়েছে।
গ্রাম পুলিশ খায়রুল আলম বলেন, মাদক ব্যবসার সঙ্গে এখন প্রত্যন্ত গ্রামের লোকজনও জড়িয়ে পড়েছে। ফলে গ্রামগুলোতেও মাদক ব্যবসা ছড়িয়ে পড়েছে। গ্রাম পুলিশরা পুলিশসহ প্রশাসনের সর্বাত্মক সহযোগিতা পেলে গ্রামগুলোতে মাদক ব্যবসা বন্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে পারতো বলে তিনি জানান।
সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরকার, রহমত আলী, আ.লীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিক আকরাম হোসেন, হাফিজ উদ্দিন সরকার বলেন, মাদক প্রতিরোধে পরিবারের অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে। পুলিশসহ সকল সচেতন নাগরিককে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসতে হবে।
ওসি মোঃ মমিনুল ইসলাম জানান, তিনি সম্প্রতি দায়িত্ব নিয়েই বেশ কয়েকটি মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে চিহ্নিত কয়েক জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছেন।
এএসপি সুশান্ত সরকার বলেন, মাদক প্রতিরোধে এখন থেকে নিয়মিত প্রতিটি গ্রামে এলাকাবাসীকে সচেতন করার লক্ষ্যে সমাবেশসহ কমিটি গঠন করা হবে। মাদক প্রতিরোধে তিনি সমাজের সচেতন মহলকে সহযোগিতার আহবান জানান।






মন্তব্য চালু নেই