মেইন ম্যেনু

চালু হচ্ছে বিমানের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট

আগামী দুই মাসের মধ্যেই দেশের সব অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালু করতে পারবে বলে জানিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে দরপত্রও আহ্বান করা হয়েছে বলে সংসদীয় কমিটিকে জানিয়েছে তারা।
সোমবার জাতীয় সংসদে বেসামরিক বিমান পরিবহন পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এমন আলোচনা হয়। কমিটি দ্রুত এ উদ্যোগ বাস্তবায়নের জন্য বিমান বাংলাদেশকে তাগিদও দিয়েছে। বৈঠক সূত্রে এসব জানা গেছে।
বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ ফারুক খান বলেন, ‘কমিটির গত বৈঠকে অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালুর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা ওঠে। তখন বিমান ও সিভিল এভিয়েশনকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার সুপারিশ করা হয়। আগামী দুই মাসের মধ্যে ফ্লাইট চালু করা সম্ভব হবে বলে তারা জানিয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘আমি মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বে থাকার সময় বলেছিলাম, ডিসেম্বরের (২০১৩) মধ্যে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চালু করা হবে। সে অনুযায়ী কাজও শুরু হয়েছিলো। কিন্তু এখনো শেষ হয়নি। মূলত ছোট এয়ারক্রাফট না পাওয়ায় অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালু করা যাচ্ছে না। কমিটি বিমানকে কিনে বা লিজ নিয়ে হলেও ছোট উড়োজাহাজ সংগ্রহ করতে বলেছে।’
এদিকে বৈঠকে ইতালির সঙ্গে যোগাযোগ বাড়াতে ঢাকা-রোম সরাসরি ফ্লাইট চালুর বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। তখন কমিটির সদস্যরা জানান, সরাসরি ফ্লাইট না থাকার কারণে এই রুটে যাত্রী কমে যাচ্ছে। ফ্রাঙ্কফুর্ট হয়ে রোম থেকে যাত্রীরা ঢাকায় আসে। এতে তারা বিরক্ত হয়। আগের মতো ঢাকা-রোম সরাসরি ফ্লাইট চালু করা গেলে যাত্রী বাড়বে। পরে কমিটির পক্ষ থেকে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।
কমিটি সূত্র জানায়, ‘লোকসানে থাকা ঢাকা-ফ্রাঙ্কফুর্ট রুটের জন্য বিমানের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কেভিন স্টিলকে দায়ী করেছেন বিমানের কর্মকর্তারা। তবে এমন জবাব আমলে নেননি কমিটির সদস্যরা। এই রুটটি চালু রাখার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রশ্ন উঠলে বিমানের কর্মকর্তারা জানান, সাবেক এমডি কেভির স্টিল পর্যাপ্ত পর্যালোচনা করে রুটটি চালু করেন।’
এ বিষয়ে কমিটির সভাপতি ফারুক খান বলেন, ‘বিমান কর্মকর্তাদের এই জবাব দুঃখজনক। একটি রুটের জন্য একজন কর্মকর্তা দায়ী থাকতে পারেন না। এখানে পুরো সংস্থার দায় রয়েছে।’
বৈঠকে জানানো হয়, বিমানের ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রত্যেকের জন্য বাৎসরিক নূন্যতম ৫০ ঘণ্টা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হযেছে। বিমানের যাত্রীসেবার মান উন্নয়ন ও বিমানকে একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে অনলাইন বুকিং সিস্টেম চালু, এসএমএসের মাধ্যমে যাত্রীদের ফ্লাইট সংক্রান্ত তথ্যাবলী প্রদান, ইন-ফ্লাইট সার্ভিসের মানোন্নয়নের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।’
কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ ফারুক খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী, তানভীর ইমাম, মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী, কামরুল আশরাফ খান ও মো. আফতাব উদ্দীন সরকার অংশ নেন।






মন্তব্য চালু নেই