মেইন ম্যেনু

গুজরাটের সিংহকে হুঁশিয়ারি বাংলার রায় বাঘিনীর

গুজরাটের সিংহ খ্যাত নরেন্দ্র মোদির সরকারকে আগাম হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন পশ্চিমবঙ্গের রায় বাঘিনী খ্যাত মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

শনিবার কালীঘাটের বাড়িতে জয়ী প্রার্থীদের সঙ্গে বৈঠকে মমতা জানিয়ে দেন কেন্দ্র সরকার জনবিরোধী নীতি নিলেই প্রতিবাদ করতে হবে। সোচ্চার হতে হবে। বাংলার উন্নয়নের দিকেও নজর রাখতে হবে।

তৃণমূলের ৩৪ জন জয়ী প্রার্থীর মধ্যে এদিনের বৈঠকে একমাত্র শুভেন্দু অধিকারী ছাড়া পুনরায় যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা সকলেই ছিলেন। জয়ের জন্য মমতা প্রত্যেককেই অভিনন্দন জানান। তাদেরকে তিনি বলেন, প্রতি বুথে কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে।‌ দলে যা খুশি করা চলবে না।‌ প্রত্যেকের সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করতে হবে। আমরা দিল্লিতে গঠনমূলক ভূমিকা পালন করব।‌ বৈঠকে মুকুল রায় ও সুব্রত বক্সি বক্তব্য রাখেন।

বৈঠকের পরে মমতা সংবাদ সম্মেলন করেন।‌ তিনি বলেন, আমরা মিডিয়াকে একটি ভালো খবর জানাচ্ছি। এবার নির্বাচনে ৩৩ শতাংশ মহিলা প্রার্থী করা হয়েছিল।‌ তার মধ্যে এক তৃতীয়াংশ প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।‌ এটা সত্যি ঐতিহাসিক খবর।

মমতা আরো বলেন, নির্বাচনের সময় যেভাবে আমরা বিরোধিতার মুখোমুখি হয়েছিলাম অন্য কোনো রাজ্যে এ রকম ঘটনা ঘটেনি। সকলে মিলে আমাদেরকে লড়াই করতে হয়েছে। সাধারণ মানুষ এ বিরোধিতার বিরুদ্ধে আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছেন।‌ এই জয় তাই জনগণের উদ্দেশে উৎসর্গ করা হয়েছে।‌ ২১ জুলাই আমরা ‘মা মাটি মানুষ দিবস’ পালন করব।

মমতা এদিন বলেন, রোববার থেকে বিভিন্ন ব্লকে এই জয়ের জন্য দলের কর্মীরা সাধারণ মানুষকে ধন্যবাদ জানাবেন। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে। মমতা অভিযোগ করেন, ৪২ আসনে একা লড়াই করে আমরা ৩৪টি আসনে জয়ী হয়েছি৷‌ এটা আমাদের বড় জয়। অথচ সব মিডিয়া আমাদের এই জয়কে ছোট করে দেখিয়েছে। এটা আমাকে অবাক করেছে।

তিনি আরো বলেন, সংসদে দলের নেতা হয়েছেন সুদীপ ব্যানার্জি। ডেপুটি লিডার রতœা দে নাগ ও সুগত বসু। কল্যাণ ব্যানার্জি চিফ হুইপ।‌ এ ছাড়া লোকসভা ও রাজ্যসভা মিলিয়ে সংসদীয় নেতা হয়েছেন মুকুল রায়।‌ সুব্রত বক্সি তাকে সব সময় সহযোগিতা করবেন। ২৫ মে রাতে জয়ী প্রার্থীরা দিল্লি যাবেন। পরের দিন শপথ নেবেন।






মন্তব্য চালু নেই