মেইন ম্যেনু

ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস পাড়ায় নির্বিচার গুলিবর্ষণ, বন্দুকবাজ সহ হত ৭

দিলীপ মজুমদার: ফের বন্দুকবাজের দাপাদাপিতে রক্তাক্ত মার্কিন শিক্ষাঙ্গন।সান্তা বারবারায় ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের আশপাশে গতকাল রাতে এক অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকধারীর নির্বিচার গুলিবর্ষণে সাতজন প্রাণ হারিয়েছে, জখম হয়েছে সাতজন।সান্তা বারবারা কাউন্টি শেরিফ বিল ব্রাউন সাংবাদিক বৈঠকে এ কথা জানিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের পাড়া ইলসা ভিস্তায় গুলিচালনার ঘটনাটিতে ‘গণহত্যার ধাঁচ’ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

পুলিশের দাবি, নিহতদের মধ্যে বন্দুকবাজও রয়েছে।সে কালো রঙের একটি বিএমডব্ল্যু গাড়ি চালাচ্ছিল বলে জানা গিয়েছে।চলন্ত গাড়ি থেকেই সে বিভিন্ন জায়গায় পথচারীদের দিকে এলোপাথাড়ি গুলি চালায়।

পুলিশ গুলিচালনার ব্যাপারে প্রথম জরুরি তলব পায় স্থানীয় সময় রাত সাড়ে নটায়।পুলিশ ঘটনাস্থলের দিকে ছুটে গেলে দুবার তার সঙ্গে পুলিশের গুলিবিনিময় হয়।তবে দুবারই সে পুলিশের গুলি এড়িয়ে পালিয়ে যায়।

ব্রাউন জানান, এরপর সে গাড়ি নিয়ে সোজা ধাক্কা মারে রাস্তায় পার্ক করে রাখা একটি গাড়িতে।পুলিশ তাকে পাকড়াও করতে তাড়া করে এগয়।তবে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।সম্ভবত কোনও বুলেট ছিটকে এসে তার মাথায় লেগেছিল।তাতেই সে প্রাণ হারায়।তার গাড়ির ভিতর থেকে একটি হাতবন্দুক পেয়েছে পুলিশ।প্রশাসনের কর্তাদের ধারণা, গণহত্যা অভিযানে সে একাই ছিল।পুলিশ জানিয়েছে, সন্দেহভাজন বন্দুকবাজ হুমকি দিয়ে ইউটিউবে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিল।সেটি পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।

ব্রাউন জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে পু্লিশের অনুমান, আগাম ছক কষেই গণহত্যা চালানোর চেষ্টা করা হয়েছিল।তথ্যপ্রমাণ তেমনই ইঙ্গিত দিচ্ছে।তবে সন্দেহভাজন ব্যক্তিটির পরিচয় প্রকাশ করেনি পুলিশ।ব্রাউন জানিয়েছেন, আমরা ৯টি পৃথক অপরাধস্থল চিহ্নিত করেছি যেখানে গুলি চলেছে।






মন্তব্য চালু নেই