মেইন ম্যেনু

কিস্তিতে বকেয়া পরিশোধের শর্তে মরদেহ দিল ইউনাইটেড

কিস্তিতে পাওনা বাকি বিল পরিশোধের শর্তে অবশেষে ব্যবসায়ী আসলামের মরদেহ ফেরত দিল ইউনাইটেড হাসপাতাল।

রোববার বিকেলে ৫ মাসে ১৫ লাখ টাকা পর্যায়ক্রমে পরিশোধের শর্তে স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়।

হাসপাতালের জনসংযোগ কর্মকর্তা মুস্তাফিজুর রহমান জানান, পরিবারের সদস্যরা বকেয়া বিল দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে অঙ্গীকারনামায় স্বাক্ষর করার পরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লাশ ফেরত দিয়েছে। অঙ্গীকারনামায় স্বাক্ষর করেছেন মৃত ব্যবসায়ীর স্ত্রী ও মেয়ে।

লাশ আটকে রেখে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বকেয়া চিকিৎসা খরচ দাবির খবরটি দেশের অন্যান্য গণমাধ্যমগুলোতে ফলাও করে প্রচারিত হওয়ার পর শর্তসাপেক্ষে লাশ হস্তান্তরে রাজি হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গুলশান থানা পুলিশকে মাঝে রেখে তারা লাশের দাবিদার পরিবারের কাছে তা হস্তান্তর করার কথা বলে। তবে গুলশান থানা পুলিশ তাতে রাজি হয়নি। এছাড়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আগে যে ১৯ লাখ টাকা দাবি করেছিল সেখান থেকেও খানিকটা পিছু হটে। ৪ লাখ টাকা কমিয়ে তারা দাবি করে ১৫ লাখ টাকা।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শর্ত রেখেছে, চিকিৎসা খরচের বাকি অংশ মারা যাওয়া রোগী মো. আসলামের পরিবার যদি পরিশোধ না করে লাশ নিতে চায় সেক্ষেত্রে গুলশান থানা পুলিশের মাধ্যমে লাশ নিতে হবে। আর পরবর্তীতে এ টাকা আদায়ের দায়িত্ব নিতে হবে ওই থানার পুলিশকেই।

এ দায়িত্ব নিতে রাজি হচ্ছে হয়নি গুলশান থানা পুলিশ।

অবশেষে পরিবারের সঙ্গে সমঝোতা করেই লাশ ফেরত দিল ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।






মন্তব্য চালু নেই