মেইন ম্যেনু

কমলার খোসায় সাতদিনেই উজ্জ্বল ত্বক!

কমলার খোসায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস রয়েছে।

ত্বক উজ্জ্বল করার পাশাপাশি এগুলো ত্বক টানটান করে, নরম ও মসৃণ করে এবং ব্রণ দূর করে। তাই কমলা খাওয়ার পর এর খোসা ফেলে না দিয়ে সৌন্দর্যচর্চায় ব্যবহার করুন।

কমলার খোসা ত্বকে কীভাবে ব্যবহার করবেন সে সম্বন্ধে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের জীবনধারা বিভাগে। একনজরে চোখ বুলিয়ে নিন।

কমলার খোসা গুঁড়ো, মধু ও হলুদ গুঁড়ো:

এক টেবিল চামচ কমলার খোসার গুঁড়োর সঙ্গে এক চা চামচ মধু ও সামান্য হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। এই প্যাক মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক ত্বক উজ্জ্বল করার পাশাপাশি ত্বকের গভীরে পুষ্টি যোগায়।

টকদই ও কমলার খোসা:

সূর্যের আলোতে কমলার খোসা ভালো করে একদিন শুকিয়ে নিন। এবার ভালো করে গুঁড়ো করুন। এখন এক চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়োর সঙ্গে এক টেবিল চামচ টকদই মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন।

এই প্যাক মুখে লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক ত্বকের কালচে দাগ দূর করে এবং ত্বক নরম ও মসৃণ করে।

কমলার খোসার গুঁড়ো ও দুধ:

এক টেবিল চামচ কমলার খোসার গুঁড়োর সঙ্গে সমপরিমাণ দুধ মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। প্রথমে মুখ ভালো করে ক্লিনজার দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। এবার এই প্যাক মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করুন।

১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক ত্বক উজ্জ্বল করার পাশাপাশি ব্রণ দূর করতেও বেশ কার্যকর।

চন্দনের গুঁড়ো, গোলাপজল ও কমলার খোসা গুঁড়ো:

এক চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়োর সঙ্গে সমপরিমাণে চন্দনের গুঁড়ো ও গোলাপজল মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণ মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক রোদে পোড়া ত্বকের কালচে দাগ দূর করে।






মন্তব্য চালু নেই