মেইন ম্যেনু

এক রাজ্যের ২ টি রাজধানী!

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে সে টেক্কা দিতে পারে সুইৎজারল্যান্ডকেও। বরফাবৃত পাহাড়চূড়া, সবুজে মোড়া উপত্যকা, ঠান্ডা বাতাসে নানা রঙের পতাকার পতপতানি, আর এ সবকিছুর সঙ্গে রয়েছে ক্রিকেট। সব মিলিয়ে হিমাচল প্রদেশের ধর্মশালা যে, যে কোনও ভ্রমণপিপাসুর স্বপ্নরাজ্য হতে পারে।

সেই স্বপ্নরাজ্যই এবার ভারতের হিমাচল প্রদেশের ‘উইন্টার ক্যাপিটাল’ থেকে প্রমোশন পেয়ে, হতে চলেছে রাজ্যের দ্বিতীয় রাজধানী শহর। ১৮৬৪ সালে, রাজ্যের সর্ববৃহৎ শহর সিমলাকে ‘সামার ক্যাপিটাল’-এর আখ্যা পায়। পরবর্তীকালে তা রাজ্যের রাজধানী হয়।

এক সময়ে পঞ্জাব প্রদেশের অংশ ধর্মশালা ছিল রাজশাসিত এলাকা। কাংড়া অঞ্চলের কাটোচ পরিবার রাজত্ব করত ধর্মশালায়। এমনই নানা ঐতিহাসিক পটভূমিকার সাক্ষ্য রয়েছে ধর্মশালায়। তা ছাড়া, এ রাজ্যের ৬৮ অ্যাসেম্বলি সিটের মধ্যে ২৫টি সিটই রয়েছে কাংড়া, উনা ও হামিরপুর জেলায়। এবং এই জেলাগুলি সিমলা থেকে অনেক নীচে হওয়ায়, প্রশাসন মনে করছে যে এই জেলাগুলিও উপকৃত হবে। প্রশাসনিক কাজের জন্য স্থানীয়দের আর কষ্ট করে সিমলা যেতে হবে না।

আরও একটি বিশেষ কারণে ধর্মশালার মাহাত্ম্য রয়েছে। বৌদ্ধ ধর্মের আধ্যাত্মিক নেতা দলাই লামার বাসস্থান এই ধর্মশালা।






মন্তব্য চালু নেই