মেইন ম্যেনু

এই চারটি পানীয় সত্যিই উপকারী

আপনার চারপাশে অসংখ্য পানীয় আছে। এর সবই দারুণ স্বাদের। একটা চুমুক দিতে হয়তো মনটা আনচান করে। কিন্তু বহু বৈজ্ঞানীক গবেষণায় এদের অনেকগুলোকে স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি বলে মত দেওয়া হয়েছে। আবার কিছু পানীয় আছে যা এমনিতেই ভালো। ফলের রস বা গ্রিন টি এর কথা নতুন করে বলার কিছু নেই। তবে এখানে সুপরিচিত কিছু পানীয়ের কথা তুলে ধরা হলো। এগুলো কিন্তু সত্যিই আপনার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। কাজেই পান করে উপকার পেতে পারেন।

১. হট চকোলেট
উষ্ণ পানীয় বলতে আমরা সবাই চায়ের জন্য পাগল। কিন্তু এক কাপ গরম চকোলেট কেউ কি উপভোগ করে দেখেছেন? এটা কিন্তু দারুণ মজার। আবার উপকারীও বটে। মাদার নেচার নেটওয়ার্ক এক গবেষণায় জানায়, কর্নেল ইউনিভার্সিটির গবেষকরা দেখেছেন, হট চকোলেটে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। এমনকি এই পানীয়র অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট গ্রিন টি এর চেয়ে ৫ গুন বেশি পরিমাণে থাকে। কাজেই কতটা উপকারী বুঝতেই পারছেন।

২. কফি
একে নিয়ে নানা তর্ক-বিতর্ক রয়েছে। তবে দিনে এক কাপ কফি কিন্তু সত্যিকার অর্থেই উপকারী। বেশি বেশি কফি আপনার ক্ষতি করবে। তবে পরিমিত ক্যাফেইন স্মৃতিশক্তিকে আরো শক্তিশালী করে তোলে। রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা হৃদযন্ত্রের দেখভাল করে। এতে আছে নাইট্রিক এসিড যা উচ্চ রক্তচাপ সামলাতে সহায়ক। নাইট্রিক এসিড এমন এক মলিকিউল যা ধমনীর রক্ত চলাচলকে আদর্শ অবস্থায় রাখে। কাজেই প্রতিদিন অন্তত এক কাপ কফি আপনার দারুণ উপকার করবে।

৩. সয় দুধ
গরুর দুধ আপনার প্রতিদিনের ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করা ছাড়াও অনেক ধরনের ভিটামিন ও খনিজ প্রদান করে। আলমন্ড দুধ দারুণ স্বাস্থ্যকর। তাই বলে সয় দুধের কথা ভুলে গেলে চলবে না। সয়বিন ভিজিয়ে, পিষে এবং সেদ্ধ করে সয় দুধ বানানো হয়। শক্তি ও প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান প্রদানে সয় দুধ দারুণ এক পানীয়। রক্তের লিপিড অংশকে সমৃদ্ধ করে এবং আনস্যাটুরেটেড ফ্যাট প্রদান করে দেহে। উদ্ভিদজাত দুধের মধ্যে এটা সেরাদের অন্যতম। সয় দুধে গরুর দুধের চেয়ে কম পরিমাণ চিনি থাকে। ফলে যারা ওজন কমাতে চান তাদের জন্য আদর্শ। এই দুধ দেহকে ক্যালসিয়াম গ্রহণে সহায়তা করে।

৪. আপেল সিডার
অনেকেই জানেন না আপেল সিডার স্বাস্থ্যের জন্য দারুণ উপকারী। এই পানীয় পাস্তুরিত থাকে না। ফিল্টারও করা হয় না। একে থাকে প্রাকৃতিক চিনি। দেহের বিষাক্ত উপাদান তাড়াতে এই পানীয় খুবই কার্যকর। আছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। ক্যান্সার, হৃদরোগ, টাইপ-২ ডায়াবেটিস এবং স্ট্রোক সামলাতে আপেল সিডার বেশ উপকারী। সূত্র: চিট শিট






মন্তব্য চালু নেই