মেইন ম্যেনু

এই আটটি জিনিস থেকে সাবধান! এদের ছুঁলেই…

যে কোনও জিনিসকে যে কোনও সময় স্পর্শ করা যায় না। কেবল সংস্কার ও লোক-পরম্পরা নয়, অনেক ক্ষেত্রে শাস্ত্রও নিষেধ করে এই ব্যাপারে। কেবল আমাদের দেশে নয়, পৃথিবীর প্রায় সব সমাজেই এই স্পর্শ-সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা বর্তমান। ‘নারদ পুরাণ’-এ বলা হয়েছে, নিজের অজ্ঞাতসারেও যদি কেউ কিছু বিশেষ জিনিসকে স্পর্শ করে ফেলেন, তা হলে তাঁর মহাবিপদ ঘটতে পারে। এর ফলে আর্থিক দুর্দশা নেমে আসতে পারে, নেমে আসতে পারে অসাফল্যের স্রোত। বিনা কারণে ভুগতে হতে পারে চরম ভোগান্তি।

‘নারদ পুরাণ’-মতে, আটটি জিনিসের স্পর্শদোষ এড়িয়ে চলা বিশেষ প্রয়োজন। কারণ, এদের স্পর্শ অশুভ শক্তিকে জীবনে ডেকে আনে। দেখা যাক এই তালিকাটিকে।

১. কোনও মৃত ব্যক্তির হাড়কে স্পর্শ করা ঠিক নয়। এতে নেগেটিভ এনার্জি জীবনে প্রবেশের সুযোগ পায়।
২. মাটিতে পড়ে থাকা খাবার পা দিয়ে স্পর্শ করে উচিত নয়।
৩. কোনও সংকটের সময়ে যদি কোনও অচেনা কুকুর আপনাকে স্পর্শ করে, তা হলে বুঝতে হবে বিপদ আসন্ন।
৪. ঘর মোছার সময়ে নোংরা জলের স্পর্শ অমঙ্গল ডেকে আনতে পারে।
৫. শ্মশানে জ্বলন্ত চিতার সামনে থেকে সরে যাওয়াই বিধেয়। এর ধোঁয়ার স্পর্শ বিপজ্জনক।
৬. মৃতদেহ স্পর্শও সমস্যা ডেকে আনতে পারে। এই দোষ দূর হয় গঙ্গাজল স্পর্শ করার পরে।
৭. মৃতের অন্ত্যষ্টির জন্য আনা চিতাকাঠ স্পর্শ করলেও সমস্যা দেখা দিতে পারে।
৮. ধুলোভরা মাদুর বা বিছনার স্পর্শও এড়িয়ে চলা উচিত। এতেও নেগেটিভ এনার্জি জেগে ওঠে।






মন্তব্য চালু নেই