মেইন ম্যেনু

ইরাকে চরম বিপদে ১৮০ বাংলাদেশি

ইরাকের নাজাফ শহরে চরম বিপদের মধ্যে পড়েছেন ১৮০ বাংলাদেশি শ্রমিক। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন প্রকৌশলীও রয়েছেন। বিপদগ্রস্ত এসব বাংলাদেশি মানবাধিকার সংগঠন রাইটস যশোরের কাছে ই-মেইল করে তাদের উদ্ধারের আবেদন করেছেন। বিপদে পড়া এই ১৮০ শ্রমিকের বাড়ি যশোরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়।

শুক্রবার দুপুরে যশোর প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিণয় কৃষ্ণ মল্লিক তাদের উদ্ধারে সরকারি সহায়তার আহ্বান জানান।

বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক জানান, ঢাকার ক্যারিয়ার ওভারসিজ কনসালট্যান্ট লিমিটেডের মাধ্যমে ইরাকের নাজাফ শহরে আবু তোরাব হাউজিং কোম্পানিতে চাকরি নিয়ে এই শ্রমিকরা গত ২২ মে দেশ ছাড়েন। দেশ ছাড়ার পর থেকেই শুরু হয় তাদের দুর্দশা।

তিনি উল্লেখ করেন, যেসব শর্তে তাদের চাকরি দেয়া হয়েছিল, তার কোনোটিই পালন করছে না কর্তৃপক্ষ। তিন মাস পার হয়ে গেলেও তারা এক মাসেরও বেতন পাননি। তিনবেলা ঠিকমতো খাবার ও পানি দেয়া হচ্ছে না। এছাড়া এই ১৮০ জনকে ৪৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের তাপমাত্রার মধ্যে বড় একটি ঘরে রাখা হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়। তাদের দিয়ে জোরপূর্বক নির্ধারিত সময়ের অতিরিক্ত কাজ করানো হচ্ছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে পরিবারের সঙ্গে সব প্রকার যোগাযোগ। ক্যাম্পে সশস্ত্র লোকজন তাদের পাহারা দিয়ে রাখে। কেউ বের হলে গুলি করা হবে বলে হুমকিও দেয়া হয়েছে।

রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালন বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক উল্লেখ করেন, বৈধভাবে এসব শ্রমিক ইরাকে গেলেও মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন অনুযায়ী এটি সুস্পষ্টভাবে মানব পাচার। অবিলম্বে এ ১৮০ বাংলাদেশিকে উদ্ধার করতে না পারলে এদের অনেকেই সেখানে জীবন হারাতে পারেন বলেও আশঙ্কা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ইরাকে অবস্থানরত প্রকৌশলী সিদ্দিক হোসেনের ভাই জাভেদ আহমেদও উপস্থিত ছিলেন।






মন্তব্য চালু নেই