মেইন ম্যেনু

আসন্ন বাজেটে কৃষকের জন্য শাইখ সিরাজের ৫৬ দফা

২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটে কৃষি ও কৃষকের জন্য বিশেষ বরাদ্দ ও গুরুত্ব দেয়ার প্রস্তাব হিসেবে ৫৬ দফা সুপারিশ করেছেন উন্নয়ন সাংবাদিক ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ। সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের হাতে এ প্রস্তাবপত্র তুলে দেন তিনি।

উল্লেখ্য, চ্যানেল আইয়ের ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানের পক্ষ থেকে এই নিয়ে নবমবারের মতো সরকারের কাছে ‘কৃষি ও কৃষকের জন্য করণীয়’ শীর্ষক বাজেট সুপারিশ দেয়া হলো।

এবারের ৫৬ দফার মধ্যে কৃষিখাতে ২০টি, পোল্ট্রি শিল্পের জন্য ১২ দফা, মৎস্য খাতের জন্য ১৩ দফা এবং প্রাণিসম্পদ ও দুগ্ধ শিল্পের জন্য ১১ দফা সুপারিশ রয়েছে।

এবছর ৫টি জেলায় ২২ হাজার কৃষকের মধ্যে কৃষিক্ষেত্রে সরকারের নেয়া বিভিন্ন কর্মসূচি ও সুযোগ সুবিধার সুফল বিষয়ে একটি প্রকাশ্য জরিপের ফলাফল তুলে ধরেন শাইখ সিরাজ।

জরিপ দেখা গেছে, ৫টি জেলার ২২ হাজার কৃষকের মধ্যে সরকারি ঋণ সহযোগিতা পাচ্ছেন মাত্র ৫ দশমিক ৬ শতাংশ, এনজিও ঋণ সুবিধা পাচ্ছেন ৭৬ শতাংশ, সরকারি উপকরণ সহায়তা কার্ড পেয়েছেন ১৬ শতাংশ, ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলেছেন ১৩ শতাংশ, স্থানীয় খাল খনন করার দাবি জানিয়েছেন ৭৫ শতাংশ কৃষক।

এছাড়া বিএডিসির বীজ ব্যবহার করে প্রতারিত হয়েছেন ১১ শতাংশ কৃষক, বেসরকারি কোম্পানির বীজ ব্যবহার করে প্রতারিত ৩৫ শতাংশ, ইউনিয়ন তথ্যকেন্দ্র সম্পর্কে জানেন ৭৩ শতাংশ, মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন ৯১ শতাংশ, ইউনিয়ন তথ্যকেন্দ্র থেকে সেবা গ্রহণ করেন ২ শতাংশ, কৃষি বাজেট পৃথভাবে ঘোষণা চান ঈশ্বরদীর ৬০ শতাংশ, ইউনিয়ন পর্যায়ে সারের ডিলারশিপ চান ৮০ শতাংশ এবং উপজেলা পর্যায়ে কোল্ড স্টোরেজ চান ৯০ শতাংশ কৃষক।

শাইখ সিরাজ জানান, ২০০৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত দেশের ৪০টি স্থানে ‘কৃষি বাজেট কৃষকের বাজেট’ শীর্ষক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৯ বছরে এ কার্যক্রমে অংশ নিয়েছেন ২ লাখ ২২ হাজার কৃষক। এবার দেশের ৫টি স্থানে কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় অংশ নেন ভোলায় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সিলেটে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, পাবনায় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরিফ ডিলু এবং জামালপুরে সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক ও বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মীর্জা আজম।






মন্তব্য চালু নেই