মেইন ম্যেনু

নির্বাচনে জয়লাভের পর দেব

আমি মাটির কাছাকাছি একজন মানুষ

পরিপাটি চুল, পরনে চিরচেনা ব্লু জিন্স আর ফুল হাতা শার্ট। নিবার্চনে জয় লাভের পর সাংসদ দেব এভাবেই সবার সামনে আসবেন বলে ভাবেননি অনেকেই। তাই তাদের ভাবনার কলসিতে জল ঢেলে দিতে একটু এগিয়ে এসে দেব বলেন, ‘আমি মাটির কাছাকাছি একজন মানুষ৷ আমার বাবা-মা সেভাবেই আমাকে মানুষ করেছেন। স্কুলের মাইনে সময়মতো দিতে পারতাম না। স্কুল নির্দিষ্ট একটা দিন মার্ক করে চিঠি পাঠাত, যে মাইনে পড়েনি৷ আমি আর আমার বোন এই পরিবেশে মানুষ হয়েছি। বলছি না একজন সাংসদ এই সমস্যার সমাধান করতে পারবে। বলছি, এই স্ট্রাগলটা দেখেছি, পেরিয়ে এসেছি বলেই আমি এখনও গ্রাউন্ডেড। আমি জানি, সাকসেস যে কোনও সময় চলে যেতে পারে। একদিন ভোরে উঠে দেখব আমি জাস্ট নেই। এখন ভালো করছি, কিন্তু এমন একটা সময় আসবে, যখন আমার ছবি চলবে না, মুখে বলিরেখা পড়ে যাবে, অন্য হিরোরা আমার চেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়ে যাবে।’

মাত্র ৩০ বছর বয়সে নায়ক থেকে সাংসদ বনে গিয়ে একটু ভারি কথাও শুনালেন সংবাদ মাধ্যমকে। নির্বাচনের আগ মুর্হুতে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে দেব তখন বলেছিলেন, ‘মনে হচ্ছে যেন ধর্ষিত হচ্ছি। হয় চিৎকার করো অথবা উপভোগ করো।’। একথার পর দেবকে কেন্দ্র করে সমালোচনা ঝড় বইতে শুরু করে। বিশেষ করে বিরোধী শিবির গণমাধ্যমের সামনে দেবকে তুলোধুনো করে।

দেব তখন সমালোচনার জবাব না দিলেও নির্বাচনে জয় লাভের পর প্রথমবারের মতো মুখ খুললেন দেব। তিনি বলেন, ‘কিছুদিন আগে, এক রাজনৈতিক মন্তব্যে আমাকে অন্যায়ভাবে জড়ানো হয়েছিল। আমি এই প্রথমবার দেখলাম প্রত্যেকটা রাজনৈতিক দলকে একটা মিডিয়া সাপোর্ট করছে। আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, কী হচ্ছে এটা? আমাকে তারা বলল, ‘আমরা কিছু করতে পারব না। আমাদের ‘বস’ এটা সাপোর্ট করছেন না।’ আমি দেখলাম, বুঝলাম। ও আচ্ছা, এটাও হয়! এটাও আমার কাছে একটা লার্নিং প্রসেস।’

অবশ্য অন্য সাংসদদের মতো ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে নিজের সমালোচনার জবাব দিতে চান না দেব। তাই তিনি বলেন ‘আমার গ্রামটা খুব পিছিয়ে আছে। মনে হয়েছিল, সাংসদ হয়ে ওদের জন্য কিছু করতে পারি। ভোটের সময় সবাই প্রমিস করে পালিয়ে যায়। আমার কাজ করবার ইচ্ছে আছে ওদের জন্য। সাংসদের টাকা দিয়ে আমার ব্যাঙ্ক ফান্ডটা ভরব না। সেটার জন্য দু’টো ফিতে কাটার অনুষ্ঠানই যথেষ্ট। ভগবানের আর্শিবাদে এই কেরিয়ারে এই মুহূর্তে আমি ভালোই করছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি পাওয়ার গেম-এও বিশ্বাসী নই, যে সাংসদ হলাম মানেই এই লাগবে সেই লাগবে। আমার অত পাওয়ার লাগেও না। এখনও ভালোবাসাতেই বিশ্বাস করি। আর দর্শকের আর্শিবাদে পপুলারিটিও আমার যথেষ্ট।’






মন্তব্য চালু নেই