মেইন ম্যেনু

আবার ঘুরে দাঁড়াবে কংগ্রেস, আশাবাদী সোনিয়া গান্ধী

বিরোধী দলের মর্যাদা লাভে ব্যর্থ হওয়ার পরেও আবার নিজের দল নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী৷‌ ভারতের হরিয়ানা ও মহারাষ্ট্রসহ ৪ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে দলীয় কর্মীদের ঘুরে দাঁড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর ৭০তম জন্মদিন উপলক্ষে এক সম্মেলনে ভাষণ দেন সোনিয়া৷‌ লোকসভা নির্বাচনে দলের শোচনীয় পরাজয়ের পর এটাই ছিল সোনিয়ার প্রথম প্রকাশ্য জনসভা৷‌

সভায় সোনিয়া দাবি করেন, ‘হতে পারে আগামী দিনের লড়াইয়ের পথটা একটু লম্বা হবে৷‌ তবুও আমাদের আরও কাজ করতে হবে৷‌ আমরা সবাই যদি এক সঙ্গে কোমর বেঁধে কাজ করি, তা হলে কংগ্রেসের পুনরুত্থান কেউ আটকাতে পারবে না৷ কংগ্রেস আবার ঘুরে দাঁড়াবে৷‌ কারণ, বিজেপি সরকার মানুষকে মিথ্যা স্বপ্নের জালে ফাঁসিয়ে বোকা বানিয়েছে৷‌’

১৬তম লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি’র বিপুল জয় প্রসঙ্গে সোনিয়া বলেন, ‘মানুষের জন্য আমরা অনেক কষ্ট করেছিলাম৷‌ কিন্তু আমাদের বিপরীত আদর্শের লোকেরা মানুষকে মিথ্যা স্বপ্ন দেখিয়ে জাল পেতেছিল৷‌ কংগ্রেসের কাজ ও সাফল্যের কথা ভুলে গিয়ে মানুষ সেই জালে ধরা পড়েছে৷’‌

ইউ পি এ আমলে কেন্দ্র সরকারের মহিলাদের ক্ষমতায়নসহ অন্যান্য সংস্কারের একটি তালিকা তুলে ধরে সোনিয়া বলেন, ‘মানুষকে ভুয়া স্বপ্ন দেখিয়ে ক্ষমতায় আসার পরই নিজেদের আসল রূপ ধারণ করেছে বিজেপি৷‌ কংগ্রেস যে জনকল্যাণমূলক প্রকল্পগুলো শুরু করেছিল, ওরা (বিজেপি) সেগুলোই নিজেদের নামে চালাচ্ছে৷’‌

কংগ্রেস সভানেত্রী বলেন, ‘সংসদে বিরোধী আসনে বসলেও নিজেদের নীতি থেকে এক চুলও সরবেন না তারা৷‌ মহিলা সংরক্ষণ বিলে পাস করাতে সরকারের ওপর সর্বশক্তি দিয়ে চাপ সৃষ্টি করবে কংগ্রেস৷‌’

সম্মেলনে হরিয়ানা ও মহারাষ্ট্রে বিধানসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে কংগ্রেস সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী দলীয় কর্মী, সমর্থকদের ঘুরে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান। দলে মহিলা সদস্যের সংখ্যা আরও বেশি বাড়ানোর ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, ‘সুনামির মতো দলে দলে মহিলারা কংগ্রেসে যোগ দিন৷‌ নীতি, আদর্শের জন্য লড়াইয়ের মানসিকতা তৈরি করুন৷‌ পঞ্চায়েত স্তর থেকে সংসদ যেখানেই মহিলারা লড়াই করতে চাইবেন সেখানেই তাঁদের লড়াইয়ের সুযোগ দেবে দল৷‌’

রাহুল আরও বলেন, ‘কেন্দ্রে যে সরকার চলছে তাদের সঙ্গে আমাদের লড়াই নীতি ও আদর্শের৷‌ চিম্তা-ভাবনার৷‌ মহিলাদের ক্ষমতায়নের মতো বিষয়ে বি জে পি মনে করে, নারী দেবী৷‌ তাদের শুধু পুজো করা হয়৷‌ নিজেদের বাড়ি থেকে বেরিয়ে মহিলারা বাইরে আসুক, স্বাবলম্বী হোক, সেটা কখনও চায় না এই সরকার৷‌ আমরা মহিলাদের স্বনির্ভরতার কথা বলি৷‌ আমরা চাই তারা বাড়ির বাইরে বেরিয়ে নিজেদের পায়ে দাঁড়াক৷‌’

কংগ্রেস নেত্রী শোভা ওঝা বলেন, ‘১৮ বছর ধরে মহিলা সংরক্ষণ বিল আটকে আছে৷‌ এই বিলে বিধানসভা ও সংসদে কমপক্ষে ৩৩ শতাংশ মহিলা সংরক্ষণের কথা বলা আছে৷‌ কংগ্রেস-শাসিত সব ক’টি রাজ্যে ৫০ শতাংশ মহিলা সংরক্ষণ চালু আছে৷‌ কিন্তু একটিও বি জে পি-শাসিত রাজ্যে তা নেই৷’

কংগ্রেস নেতা মণিশঙ্কর আয়ার বলেছেন, মহিলাদের ক্ষমতায়ন মোদিকে গুজরাটে ফেরত পাঠাবে, সমুদ্রে নিক্ষেপ করবে৷‌

এদিকে কংগ্রেস নেতাদের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিজেপি মুখপাত্র শাহনওয়াজ হুসেন বলেন, নির্বাচনে গো-হারা হেরে গিয়ে কংগ্রেস এখন ডুবন্ত দল৷‌ মণিশঙ্কর আয়ারের মতো নেতাদের জন্যই কংগ্রেসকে এই দুর্দশা ভোগ করতে হচ্ছে৷






মন্তব্য চালু নেই