মেইন ম্যেনু

গাজা সংঘাত

অস্ত্রবিরতিতে সম্মত ইসরায়েল-হামাস

গাজায় ৭২ঘণ্টার একটি যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়েছে ইসরায়েল ও হামাস। স্থানীয় কর্মকর্তা এবং মিশরীয় মধ্যস্থতাকারীদের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা বিবিসি।

দুই পক্ষের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টা থেকে এই যুদ্ধবিরতি কার্যকর হবে। ইসরায়েল বলছে, কোন পূর্বশর্ত ছাড়াই তারা মিশরের এই অস্ত্রবিরতি প্রস্তাব গ্রহণ করেছে। একই সঙ্গে তারা কায়রোতে অনুষ্ঠিতব্য শান্তি আলোচনায় একটি প্রতিনিধিদল পাঠাতেও রাজি হয়েছে।।

এদিকে মিশর জানিয়েছে, এই যুদ্ধবিরতি গাজায় সংঘাত অবসান ও একটি স্থায়ী সমাধানের পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি। কায়রোর মধ্যস্থতাকারী এবং কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন, তাদের দেয়া ৭২ ঘণ্টার একটি যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে দুই পক্ষই সম্মত হয়েছে। স্থানীয় সময় সকাল আটটা থেকে এই যুদ্ধবিরতি কার্যকর হচ্ছে বলেও তারা জানিয়েছেন।।

এর আগে সোমবার দিনভর কায়রোতে অনুষ্ঠিত শান্তি আলোচনায় অংশ নেয় ফিলিস্তিনি সশস্ত্র সংগঠন হামাসসহ বিভিন্ন গ্রুপ। সেখানে কোন প্রতিনিধি পাঠাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল ইসরায়েল। মিশর শান্তি আলোচনায় ফিলিস্তিনের মূল দাবীর মধ্যে রয়েছে-গাজা থেকে ইসরায়েলি বাহিনী ও তাদের আরোপ করা অবরোধ প্রত্যাহার, এবং সীমান্তের সংযোগ পয়েন্টগুলো খুলে দেয়া। এর আগে বেশ কয়েকবার যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করা হলেও প্রতিবারই একে অপরের বিরুদ্ধে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছে হামাস ও ইসরায়েল।

এর আগে সোমবার মানবিক কারণে সাত ঘন্টার একক যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করেছিল ইসরায়েল। কিন্তু এরপরপরই তারা গাজার উত্তরে একটি শরণার্থী শিবিরে গোলাবর্ষণ শুরু করে। এতে একজন নারী ও একজন কিশোরী প্রাণ হারিয়েছে। রোববার গাজায় জাতিসংঘ পরিচালিত স্কুলে হামলার পর জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের কড়া সমালোচনার মুখে ইসরায়েল সোমবারের ঐ সাময়িক যুদ্ধবিরতির ঘোষণা করেছিল।

গাজায় গত চার সপ্তাহ ধরে চলমান ইসরায়েলি হামলায় আঠারোশ’রও বেশি ফিলিস্তিনি প্রাণ হারিয়েছে। এই সময়ে সাতষট্টি জন ইসরায়েলিও নিহত হয়েছে। এছাড়া হামলায় নিহত হয়েছেন ইসরায়েলে বসবাসকারী একজন থাই নাগরিক।






মন্তব্য চালু নেই