মেইন ম্যেনু

মাঝ নদীতে দুর্ঘটনায় গ্রিনলাইন, প্রাণে বাঁচল দুইশ যাত্রী

কয়লাবাহী নৌযানের ধাক্কায় ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচলকারী এমভি গ্রিনলাইন-২ লঞ্চের নীচ তলা ডুবে গেছে। তবে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন দুইশ যাত্রী।

শনিবার বিকাল পৌনে চারটার দিকে বরিশাল সদর উপজেলার কীর্তনখোলা নদীর বেলতলা খেয়াঘাট সংলগ্ন এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। একটি কয়লাবাহী বার্জের ধাক্কায় লঞ্চটির তলা ফেটে যায়। পরে তাৎক্ষণিকভাবে লঞ্চটি তীরে ভেড়ানোয় প্রায় দুই শতাধিক যাত্রী প্রাণে বেঁচে যান।

তবে তীরে ভিড়তে পারলেও ততক্ষণে গ্রিনলাইনের নিচতলা পানিতে ডুবে যায়। আর কয়লাবাহী নৌযানটি ডুবেছে ঘটনাস্থলেই। এতে ৫৩২ টন কয়লা রয়েছে বলে জানিয়েছেন নৌ পুলিশের অতিরিক্ত সুপার আবদুল মোতালেব।

গ্রীন লাইন-২ এর যাত্রী আব্দুল্লাহ হাসান ঘটনাস্থল থেকে ফেসবুকে একটি ছবি আপলোড দিয়েছেন। তবে নৌযানটিকে ভুল করে তিনি বালুবাহী ভেবেছিলেন। ফেসবুবে হাসান লেখেন, ‘বালুবাহী ট্রলারের সাথে সংঘর্ষে গ্রিন লাইনের যাত্রা বাতিল। জরুরি মিটিং সব আল্লাহর হাতে। চোখের সামনে ডুবল বালুবাহী ট্রলার এবং গ্রিনলাইন ওয়াটারবাস।’

নৌ পুলিশের অতিরিক্ত সুপার আবদুল মোতালেব জানান, এই ঘটনায় কোনো প্রাণহানি হয়নি।

বরিশাল বিভাগের নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিটু জানান, উদ্ধারকারী জাহাজ নির্ভীককে ঘটনাস্থলে এনে উদ্ধার তৎপরতা শুরুর প্রক্রিয়া চলছে।

রবশিাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউনিয়া থানার সহকারী কমিশনার শাহনাজ পারভীন বলেন, লঞ্চ যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে তারা ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করেছেন।






মন্তব্য চালু নেই